Farhan's Articles

"Iqra Bismi R abbikaallazi Khalaq" - "Read! In the name of Allah who created all the exists"

logo-icon

আধুনিক নির্মাণে উচ্চশক্তির রড ব্যাবহারে কোড কি সত্যিই অন্তরায় ?

1,128 Views

বাংলাদেশ ১৫৯৮০১,০১,৪০,০০০ বর্গ ফিটের দেশ,

যেখানে বসবাস করছে প্রায় ১৬,৯৬,০৮,৬৩৬ মানুষ অর্থাৎ প্রত্যেক মানুষের জন্য বরাদ্ধ মাত্র ৯৪২১ বর্গ ফিটের কিছু বেশি।

এর মধ্যেই তার থাকা খাওয়া , ফসল উৎপাদন , খেলা ধুলা সহ জীবনের যাবতীয় আয়োজন মেটাতে হবে।

ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক উন্নয়নের মধ্যে দিয়ে উঠে আসা পৃথিবীর ১৯৫টি দেশের মধ্যে ৩২তম শক্তিশালী দেশটি জনসংখ্যার ঘনত্বে কিন্তু ৮ম স্থান দখল করে আছে।

অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আর সামাজিক অবস্থানকে যুগপৎভাবে ধরে রাখতে হলে আকাশচুম্বী অবকাঠামো নির্মাণের বিকল্প আমাদের প্রিয় মাতৃভূমির নেই।

অবকাঠামো নির্মাণে রড সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর একটি।

বিশ্বে স্টিল উৎপাদনে ২৯ তম দেশ হয়েও বাংলাদেশের এখন শুধুমাত্র রড উৎপাদনের ক্ষমতা আছে বছরে প্রায় ৯০ লক্ষ মেট্রিক টনের,

যা কিনা ২২তম অবস্থানে থাকা পোল্যান্ডের চাহিদার থেকেও বেশি।

গত ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে ৬৩ লক্ষ টনেরও বেশি রডের চাহিদা মিটিয়েছে এদশের স্টিল উৎপাদনকারীরা যা কিনা ছিল এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ।

এবং আমার কাছে বিদ্যমান পরিসংখ্যান থেকে আমি বলতে পারি ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে এই সংখ্যা হবে ইনশাল্লাহ ৬৬ লক্ষ ৬২ হাজারের ও বেশি। 

শুধুমাত্র দেশীয় প্রতিষ্ঠানের নির্ভরতায় নির্মাণের রড সরবরাহের এই বিশাল মাইলফলক অর্জনে দেশের বৃহৎ ৮টি রিবার কোম্পানির অবদান অসামান্য।

এর মধ্যে বিশেষভাবে ধন্যবাদ প্রাপ্ত হলো শীর্ষ চার বিএসআরএম , এককেএস , জিপিএইচ ইস্পাত ও কেএসআরএম।

যাদের ক্রমাগত প্রচেষ্টা , গবেষণা ও একাগ্রতার ফলে,

বাংলাদেশ ৪০ গ্রেডের রডের যুগ থেকে ৬০ গ্রেড , তারপর প্রথমে ৭২.৫ গ্রেড ,

এরপর এর আধুনিক সংস্করণ ডাকটিলিটি ক্লাস ডি এর বি৫০০ডিডব্লিউআর ,

শক্তিশালী ৮০ গ্রেড ,

এবং সর্বশেষ দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে শক্তিশালী রড ৮৭ গ্রেডের বি৬০০সি-আর এবং ডাকটিলিটি ক্লাস ডি-এর বি৬০০ডি-আর এর যুগে প্রবেশ করেছে বাংলাদেশ।

বলাবাহুল্য , এদের এই ধারাবাহিক সাফল্যের ফলে গত অর্থ বছরে শুধুমাত্র এই চারটি প্রতিষ্ঠানের মার্কেট শেয়ার ছিল ৫৫.৩৫% ।

বাংলাদেশ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড এবং এর সাথে সংশ্লিষ্ট গণপূর্ত অধিদপ্তর ও হাউজ বিল্ডিং রিসার্চ ইনস্টিটিউট ৬০ গ্রেড রডকে সাদরে সম্ভাষণ জানালেও,

প্রথমে ৭২.৫ গ্রেডের ক্ষেত্রে গড়িমসি এবং অনেকটা দয়া করে ৮০ গ্রেডের ক্ষেত্রে সর্বশেষ সংস্করণ বিএনবিসি-২০২০ তে কিছুটা জায়গা দিয়েছে। 

যদিও ৭২.৫ কে এর অফিসিয়ালি স্বীকৃতি পেতে অপেক্ষা করতে হয়েছে প্রায় এক যুগ এবং ৫৫০ এমপিএ কে পার করতে হয়েছে বছরের পর বছর।

মজার ব্যাপার হলো, বিএনবিসির নিজেকেই নিজের পরিবর্তন করতে লেগেছে প্রায় ২৭ বছর !!!

আবার বিএনবিসি কোডে ৮০ গ্রেড রড স্থান করে নিলেও বিএসটিআই এর ম্যানুফ্যাকচারিং কোডের হিসেবে এটি স্বীকৃতি পায় না ,

কারণ বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউট অনুসরণ করে বিডিএস:আইএসও ৬৯৩৫-২ কোড যাতে ৫৫০ এমপিএর কোন অস্তিত্ব নেই।

এই কারনে উৎপাদনকারীদের পড়তে হয়েছে বিড়ম্বনায় তাই বাজারজাত করতে হচ্ছে ভিন্ন ভিন্ন নামে।

অথচ , এই ৮০কেএসআই এর শক্ত অবস্থান আছে এএসটিএম কোডে যে কোড অনুসরণ করে বাংলাদেশে রডের বেশিরভাগ ম্যাকানিক্যাল টেস্ট হয়।

এছাড়া উল্লেখ আছে এসিআই কোডে ঠিক যে কোড এর সাহায্য নিয়ে বিএনবিসি কোড বানানো।

এ যেন যেমন খুশি তেমন সাজোর মত একটা অবস্থা।

এবারে ডিজাইন কোড নিয়ে আসি।

আমি আগেই বলেছি বিএনবিসি কোড এসিআই কোডের একটা ছায়া কোড মাত্র।

সেটা দোষের না , দোষের হচ্ছে এই কোডের দোহাই দিয়ে যখন রিসার্চে প্রমাণিত নতুন কোন পণ্য বাজারে আসলেই তাকে অসহযোগীতা কিংবা মেনে না নেওয়া হয় সেখানে।

বিএনবিসি ২০২০ কোড এসিআই ২০০৮ থেকে অনুপ্রাণিত।

অথচ , এসিআই এর পরে স্বপ্রনোদিত হয়ে ২০১১,২০১৪ ও ২০১৯ এ মোট  তিনবার পরিবর্তিত ও পরিবর্ধিত হয়েছে।

সেখানে ছায়া কোডের নিজেকে নিয়ে ভাবনাটা যেন একেবারে ম্রিয়মান।

আমেরিকান কংক্রিট ইনস্টিটিউট এর বিল্ডিং কোড ৩১৮-১৯ এ বলা আছে , ফ্লেক্সারাল মেম্বারে এবং এক্সিয়াল মেম্বারে রেইনফোর্সম্যান্ট ৫৫০ এমপিএ থেকে ৬৯০ এমপিএ পর্যন্ত ব্যাবহার করা যাবে।

ইউরোপের বিল্ডিং এবং ব্রীজ ডিজাইনের কোড ইউরোকোড ৮, ডিজাইন অফ স্ট্রাকচার ফর আর্থকোয়াক রেজিস্ট্যান্স এ ফ্লেক্সারাল মেম্বারে এবং এক্সিয়াল মেম্বারে রেইনফোর্সম্যান্ট ৬০০ এমপিএ কে সমর্থন করে।

সিঙ্গাপুরের বিল্ডিং এবং কনস্ট্রাকশন অথোরিটির সর্বশেষ আপডেট ফ্লেক্সারাল মেম্বারে এবং এক্সিয়াল মেম্বারে রেইনফোর্সম্যান্ট ৬০০ এমপিএ কে সমর্থন করে।

আমেরিকান এসোসিয়েশন অফ স্টেট্ হাইওয়ে এন্ড ট্রান্সপোর্টেশন অফিসিয়ালস ,

যাদের কোড মূলত ব্রীজ এবং হাইওয়ে ডিজাইনের জন্য বিখ্যাত তারাও কিন্তু বলছে ফ্লেক্সারাল মেম্বারে ৬৯০ এমপিএ এবং এক্সিয়াল মেম্বারে রেইনফোর্সম্যান্ট ৫৫০ এমপিএ ব্যাবহার করা যেতে পারে।

কোরিয়ান কংক্রিট ইনস্টিটিউট ২০১২ সালেই তাদের বিল্ডিং ডিজাইনের ক্ষেত্রে ফ্লেক্সারাল মেম্বারে এবং এক্সিয়াল মেম্বারে রেইনফোর্সম্যান্ট ৬০০ এমপিএ কে সমর্থন করেছে।

আবারো ফিরে যাই চির অনুসরণীয় এসিআই কোড ৩১৮-২০১৪ তে ,

সেখানে স্পষ্ট করে বলা আছে টেবিল ২০.২.২.৪এ তে ,

স্পেশাল সিসমিক সিস্টেম ও অন্যান্য জায়গায় যেখানে  ফ্লেক্সার , এক্সিয়াল ফোর্স , শৃংকেজ এবং ট্যাম্পেরেচার এর ব্যাবহার আছে সেখানে রেইনফোর্সম্যান্ট ৮০,০০০ পিএসআই এবং স্পাইরাল সিসমিক সিস্টেম , স্পাইরাল ও অন্যান্য জায়গায় যেখানে ল্যাটারাল সাপোর্ট  অফ লংগিচুডেনাল বার অর কংক্রিট কনফাইনম্যান্ট এর ব্যাবহার আছে সেখানে ১০০ গ্রেড পর্যন্ত রডের ডিজাইনকে উৎসাহিত করা হয়েছে।

সর্বশেষ এসিআই কোড ৩১৮-২০১৯ তে ,

সেখানে স্পষ্ট করে বলা আছে টেবিল ২০.২.২.৪এ তে ,

স্পেশাল সিসমিক সিস্টেম ও অন্যান্য জায়গায় বিশেষ করে স্পেশাল মোমেন্ট ফ্রেম ও স্পেশাল স্ট্রাকচারাল ওয়ালে যেখানে  ফ্লেক্সার , এক্সিয়াল ফোর্স , শৃংকেজ এবং ট্যাম্পেরেচার এর ব্যাবহার আছে,

সেখানে রেইনফোর্সম্যান্ট ৮০,০০০ পিএসআই ও ১,০০,০০০ পিএসআই 

এবং স্পাইরাল সিসমিক সিস্টেম , স্পাইরাল ও অন্যান্য জায়গায়

যেখানে ল্যাটারাল সাপোর্ট  অফ লংগিচুডেনাল বার অর কংক্রিট কনফাইনম্যান্ট এর ব্যাবহার আছে

বিশেষ করে স্পেশাল সিসমিক সিস্টেমে  মোমেন্ট ফ্রেম ও স্পেশাল স্ট্রাকচারাল ওয়ালে

সেখানে ৮০ গ্রেড থেকে  ১০০ গ্রেড পর্যন্ত রডের ডিজাইনকে অনুমোদিত করা হয়েছে।

এতো গেলো ডিজাইন কোড , চলুন দেখি ম্যানুফ্যাকচারিং কোডগুলো কি বলছে।

বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউট যে কোড অনুসরণ করে,

বিডিএস:আইএসও-৬৯৩৫-২:২০১৯ (ই) তে সর্বোচ্চ শক্তির রড হিসেবে বলা আছে ৭০০ এমপিএ বা ১০০গ্রেড কে।

আমেরিকান সোসাইটি ফর টেস্টিং ম্যাটেরিয়ালস এর কোড এ৬১৫/এ৬১৫এম-২০ এবং এ৭০৬/এ৭০৬এম-২২ অনুসারে সর্বোচ্চ শক্তির গ্রেড ১০০।

ব্রিটিশ স্ট্যান্ডার্ড ৪৪৪৯:২০০৫+এ৩:২০১৬ অনুসারে সর্বোচ্চ শক্তির রড বি৫০০সি যার ইল্ড স্ট্রেংথ সর্বোচ্চ ৬৫০এমপিএ পর্যন্ত অনুমোদিত।

পৃথিবীর সবচেয়ে ভূমিকম্প প্রবন দেশ জাপান এর জেআইএস  জি ৩১১২:২০২০ অনুসারে সর্বোচ্চ শক্তির রড হলো ৭৮৫ এমপিএ বা ১১৩ গ্রেড।

এবং এই ৭৮৫এমপিএ রডের ডাকটিলিটি ধরা হইছে ১.১৭ মাত্র।

জ্বী , হ্যাঁ।

বাংলাদেশের সিসমিক জোন এর ভেরি সিভিয়ার আর সিভিয়ার জোনে রডের ইল্ড স্ট্রেংথ যাদের ৬০,০০০ পিএসআই উঠাতেই যাদের পানি পিপাসা পেয়ে যায়

তারা দয়া করে জাপানিজ কোড নিয়ে একটু দেখবেন ।

বাংলাদেশের বেশিরভাগ মেগা কনস্ট্রাকশন ফলো করে যে চাইনিজ স্ট্যান্ডার্ড তাদের কোড জিবি/টি ১৪৯৯.২-২০১৮ সর্বোচ্চ রডের স্বীকৃতি দিয়েছে এইচআরবি৬০০ কে।

অস্ট্রোলিয়া ও নিউজিল্যান্ড এর কোড এএস/এনজেডএস ৪৬৭১:২০১৯ অনুসারে সর্বোচ্চ শক্তির রড ৭৫০এমপিএ।

এবং শুধু তাই নয়,

স্পেশাল সিসমিক জোনের জন্য তাদের অন্যতম পছন্দ ৫০০ই যার ইল্ড স্ট্রেংথ ৬০০এমপিএ পর্যন্ত অনুমোদিত সাথে ডাকটিলিটি রেশিও ১.১৫ হলেই গ্রহণযোগ্য।

সিঙ্গাপুর স্ট্যান্ডার্ড কাউন্সিল এসএস ৫৬০:২০১৬ কোড অনুসারে বি৬০০সি যার ডাকটিলিটি রেশিও মিনিমাম ১.১৫।

আসুন আবার চলে আসি , আমাদের বিএনবিসি কোড- ২০২০ এ ,

পার্ট ৬ , চ্যাপ্টার ৫ এ কংক্রিট ম্যাটেরিয়ালস এর ৫.৩.২.২ এ বলা আছে ,

Deformed reinforcing bars with a specified yield strength fy exceeding 420 N/mm2 shall be permitted,

provided fy shall be the stress corresponding to a strain of 0.35 percent

and the bars otherwise confirm to one of the ASTM specifications listed in Sec 5.3.2.1 (Also see Sec 6.1.2.5)

যেখানে Sec 5.3.2.1 (b) তে বলা হয়েছে,

“Standard Specification for Deformed and Plain Billet Steel Bars for Concrete Reinforcement (ASTM A615/A615M)”

এবং Sec 5.3.2.1 (e) তে বলা হয়েছে

“ Standard Specification for Low Alloy Steel Deformed Bars for Concrete Reinforcement (ASTM A706/A706M)” 

আপনি চাইলে স্ট্রেস স্ট্রেইন কার্ভ থেকে ০.৩৫ অফসেট নিয়েও দেখতে পারেন সেখানে কত ইল্ড স্ট্রেংথ আসে.

কিংবা আপনাকে যেহেতু একদম কোড নির্ধারিত করে দিয়েছে সেখানেও গিয়ে দেখতে পারেন ইনশাল্লাহ গ্রেড ৮০ ও গ্রেড ১০০ দুটোরি স্বীকৃতি আপনি পাবেন।

বিএনবিসি কোডের প্রথম ভার্সন ১৯৯৩/২০০৬ এর প্রিফেস এ কিছু কথা লেখা ছিল ,

” Technology is a dynamic field with continues advancement and innovations , so is a building code.

The code will require continues update and periodic revisions to keep pace with developing technology

and needs of the changing time.

After the National Building Code has been used and tested in the field,

many issues will have the opportunity to be judged in practice and the need for revision of specific requirements will be felt.

Update and revisions of the code will have to become a routine affair eventually.

However, it is envisaged that for the second edition of the code,

which is expected to be issued within the next five years,

continuous monitoring by a standing committee will be necessary.

To this aim, a cell will function within the Housing and Building Research Institute,

the organization responsible for publication of this edition of the code.

The cell will receive observations by and suggestions from professionals who will apply the code in practice.

These observations and suggestions will be examined by panels of experts for incorporation in the subsequent edition of the code”

শুধুমাত্র প্রিফেসের এই অংশের জন্য ২০০৬ সালে বিএনবিসি ১৯৯৩/২০০৬ গেজেট আকারে প্রকাশের পর,

২০০৮ সাল থেকে ১১ই ফেব্রুয়ারি , ২০২১ পর্যন্ত বাংলাদেশে লক্ষ লক্ষ ভবনে ৫০০এমপিএ বা ৭২.৫ গ্রেডের রডের ব্যাবহার সত্ত্বেও

একটি কাঠামোরও বিরুদ্ধে কতৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা নেয়নাই।

কারণ এটা ছিল মেনে নেওয়ার মতোই একটা কঠিন বাস্তবতা।

ঠিক একইভাবে বিএনবিসি ২০২০ এর প্রিফেসে আরও কিছু কথা লেখা আছে ,

” Since its publication in 1993, BNBC has been referred to and consulted by the professionals and designers in the field of building design and construction .

After the endowment of legal status, importance of the BNBC 2006 has further enhanced.

However, unlike other building codes available in the world,

the Bangladesh National Building Code has not yet been formally reviewed and updated since it was drafted in 1993.

Neither any feedback of the professionals regarding the document has been taken into formal consideration.

In the last twenty-two years, new materials have been introduced,

new scientific methods have emerged, new technologies have evolved

and both design of structures and construction practices have gone through enormous changes.

Researchers, engineers and academics in Bangladesh have also conducted new studies

which enriched our knowledge about planning, design, construction and sustainability”

প্রিফেসের এই কথাগুলোর পাশাপাশি , আরো চমৎকার করে,

Volume:1, Part 5, Chapter 2 এর 2.1.1 New or Alternative Materials ব্যাপারে লেখা আছে ,

“The provisions of this Part are not intended to prevent the use of any new and alternative materials.

Any such material may be approved provided it is shown to be satisfactory for the purpose intended

and at least equivalent of that required in this Part in quality, strength, effectiveness, fire resistivity, durability, safety, maintenance and compatibility.”

আশা করবো উপরে উল্লেখিত আলোচনার পর আপনার মনেও এখন একটি বিশ্বাস একটু একটু করে দানা বাঁধতে শুরু করবে যে ,

কোড কখনও কোন ঐশ্বরিক বাণী নয় যে এটি কোন পরিবর্তন গ্রহণ করবেনা। কোড যুক্তিযুক্ত বিজ্ঞানের এক সুন্দর মালা মাত্র।

যদি এরপরেও আপনি হোন অনমনীয় তবে এই ভবিষ্যৎ বাণীটি আপনার জন্য ,

“আজ থেকে ১০ বছর পরে যখন বাংলাদেশে আরও লক্ষাধিক আধুনিক স্থাপনা হবে উচ্চশক্তির ৮৭গ্রেডের বি৬০০সি-আর/ডি-আর রড দিয়ে ,

ততদিনে হয়তো এসিআই ৩১৮-২০১৯ কিংবা তারও আপডেটেড ভার্সনের ছায়া হিসেবে প্রকাশিত হবে বিএনবিসির তৃতীয় ভার্সন ,

তখন আপনাদের অনেকেরই মগজ আপনাদেরকে একটি প্রশ্ন করবে,

আধুনিক নির্মাণে উচ্চশক্তির রড ব্যাবহারে কোড কি সত্যিই অন্তরায় ছিল ? নাকি আপনি ? ”                                                         

আমার এই লেখাটি গত ১৩ই সেপ্টেম্বর , ২০২৩ তারিখে , দৈনিক কালেরকণ্ঠ পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে “আধুনিক নির্মাণে উচ্চশক্তির রড ব্যাবহারে কোড কি সত্যিই অন্তরায় ছিল ? নাকি আপনি ?” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত হয় ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top